রাজবাড়ীতে ফারুক হত্যার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ ,২৫ জুন, ২০১৪ | আপডেট: ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ ,২৫ জুন, ২০১৪
পিকচার

রাজবাড়ী নিউজ ২৪.কম : ঢাকার কেরানীগঞ্জে দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের বড় চর বেনীনগর (মাইছাঘাটা) এলাকার ফারুক (২০)-এর হত্যার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে ফারুকের পরিবারের সদস্যবৃন্দ ও এলাকাবাসী।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সামনের প্রধান সড়কে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে ফারুক হত্যার বিচার চেয়ে বক্তব্য রাখেন, ফারুকের মা কদবানু নেছা, বাবা আব্দুল গফুর মোল্লা, স্ত্রী সুমি বেগম, বড় ভাই জাফর মোল্লা, আরজু হোসেন, ছোট ভাই রাজা হোসেন, ছোট বোন রেনু আক্তার, বড় ভাবী কানিজ ফাতেমা, এলাকাবাসীর পক্ষে মিজানপুর ৬ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো: জোচনসহ প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ করে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি প্রদান করা হয়।

গত ২০ জুন শুক্রবার রাজবাড়ী শহরের ড্রাই-আইস ফ্যাক্টরি এলাকার কিশলয় প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে নামাজে জানাজা শেষে ভবানীপুর পৌর গোরস্থানে ফারুকের লাশ পুন:দাফন দাফন করা হয়।
এর আগে তার লাশ উদ্ধার করে আঞ্জুমান মফিদুলের সহযোগিতায় বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করেছিলেন কেরানীগঞ্জ থানার পুলিশ। গত ২৭ মে সন্ধ্যায় ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জের একটি চরে বালুর মধ্যে পুঁতে রাখা অবস্থায় পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।

বড় চর বেনীনগর গ্রামের আব্দুল গফুর মোল্লার ছেলে ফারুক মোল্লা(২০) গত ২৪ মে তার বড় ভাই জাফর মোল্লার ঢাকার লালবাগের ভাড়া বাসায় বেড়াতে যায়। পরদিন ২৫ মে দুপুরের পর মোবাইলে ফোন পেয়ে সে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। তারপর থেকে সে নিঁখোজ ছিল। জাফর মোল্লার দাবী, ফারুকের হত্যার সঙ্গে ফারুকের ৩ বন্ধু বড় চর বেনীনগরের শাজাহান, সোহেল ও ঠান্ডু জড়িত। ওরাই ফারুককে ফোন করে তার বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায়। ওই ঘটনায় ২৭ মে তিনি লালবাগ থানায় একটি জিডি করেন।

 

 

আপডেট : বুধবার ২৫ জুন,২০১৪/ আশিক

 


এই নিউজটি 1166 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments