,

রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সহ-সম্পাদক ”মোমিনুল ইসলাম মানুর” অকাল মৃত্যু

News

রাজবাড়ি নিউজ২৪.কম : :  রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সহ-সম্পাদক ও দৈনিক ইনকিলাবের জেলা প্রতিনিধি মোঃ মোমিনুল ইসলাম মানু হৃদরোগে ক্রান্ত হয়ে স্ট্রোক করে গতকাল ৩০ জুলাই বুধবার রাত ১০টা ৫০ মিনিটে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নানিল্লাহি —– রাজেউন)।

তার বয়স হয়েছিল ৬২বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও ৪জন কন্যাসহ বহু আত্মীয় স্বজন ও শুভানুধায়ী রেখে গেছেন।
তার মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার মোঃ রেজাউল হক,পিপিএম(সেবা) ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) গোপাল চন্দ্র দাস হাসপাতালে ছুটে যান।
মরহুমের পারিবারিক সুত্র জানায়, রাজবাড়ী শহরের সজ্জনকান্দা সেগুন বাগিচাস্থ নিজ বাড়ীতে গতকাল বুধবার রাত ৯টার দিকে মোঃ মোমিনুল ইসলাম মানু গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। রাত ৯টা ৫০মিনিটে তাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় তাৎক্ষনিক সংবাদ পেয়ে রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার আব্দুল মতিন হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে তার চিকিৎসার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেন। এরপর হাসপাতালে উপস্থিত হন প্রেসক্লাবে উপস্থিত হন প্রেসক্লাবের সভাপতি খান মোঃ জহুরুল হক। তাদের উপস্থিততিতে চিকিৎসা চলাকালে রাত ১০টা ৫০ মিনিটে কর্তব্যরত কার্ডিওলোজী কনসালটেন্ট ডাঃ বিমল চন্দ্র বেপারী তার মৃত্যুর খবর ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে হাসপাতালে উপস্থিত হন প্রেসক্লাবের অন্যান্য সদস্য ও তার দীর্ঘদিনের সহকর্মি আবু মুসা বিশ্বাস, এম.দেলোয়ার হোসেন, কাজী আব্দুল কুদ্দুস বাবু, মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, শ্যামল কুমার মজুমদার, মোঃ আবুল কালাম, মোঃ সানাউল্লাহ, মোঃ আহসান হাবীব টুটুল, রাজবাড়ী রিপোটার্স ইউনিটের সভাপতি মোঃ ইউসুফ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মোঃ শিহাবুর রহমান, সুশীল কুমার দাস, খন্দকার রবিউল ইসলাম মজনু ও রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।সহকর্মি ও স্বজনদের অনেকে মোমিনুল ইসলাম মানু’র মরদেহ দেখে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি,

আজ ৩১ জুলাই বেলা ১১টায় রাজবাড়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তার জানাযা শেষে তাকে ভবানীপুর পৌর কবরস্থানে দাফন করা হবে।


যতদূর জানাযায়, মোমিনুল ইসলাম মানু দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছিলেন। গত প্রায় ৮বছর আগে তার হার্টে বাইপাস সার্জারী করা হয়েছিল।
অসুস্থ্য ও আর্থিকভাবে অসচ্ছল সাংবাদিক মোমিনুল ইসলাম মানু সম্প্রতি “সাংবাদিক সহায়তা ভাতা/অনুদান”-পাওয়ার জন্য আবেদন করলে রাজবাড়ী জেলা কমিটি তাকে ভাতা/অনুদান প্রদানের জন্য সুপারিশ করেছিল। এ ছাড়াও রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীও তথ্য মন্ত্রণালয়ে ডি.ও লেটার দিয়েছিল সহায়তার ভাতা/অনুদান প্রদানের জন্য। কিন্তু এবারের তালিকায় তার(মোমিনুল ইসলাম মানু’র) নাম স্থান পায়নি বলে  জানাগেছে। 

রাজবাড়ি নিউজ২৪.কম  / স্বপ্ন / ৩০ জুলাই ২০১৪ 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর