,

গণমাধ্যমকে খাঁচায় বন্দির পাঁয়তারা চলছে : বিএনপি

News

ডেস্ক রিপোর্ট : জবাবদিহি ও দায়বদ্ধতার কথা বলে গণমাধ্যমকে সরকারি খাঁচায় বন্দির পাঁয়তারা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ। বলেছেন, সংবাদপত্র, সংবাদ সংস্থা অনলাইন নিউজ পোর্টাল, টেলিভিশন, রেডিওসহ গণমাধ্যমের সকল শাখাকে জবাবদিহি ও দায়বদ্ধতার আওতায় আনার জন্য সরকার বেশ কিছু আইন ও নীতিমালা প্রণয়ন করতে যাচ্ছে। টেলিভিশন বন্ধেও নাকি আইন হচ্ছে। আমরা মনে করি, বিভিন্ন আইন-নীতিমালা করে গোটা গণমাধ্যমকে তারা সরকারি খাঁচায় পুরতে চাইছে।

গতকাল নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। সরকারের দমননীতির সমালোচনা করে রিজভী আহমেদ বলেন, সংবিধানে কালো আইন সংযোজনের মাধ্যমে তারা জনগণের ওপর নিপীড়ন-নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। এর মাধ্যমে শেখ হাসিনা দেশে দ্বিতীয় বাকশালি রাজত্ব কায়েম করেছেন। বিএনপি তীব্র গণআন্দোলনের দিকে যাচ্ছে মন্তব্য করে রিজভী আহমেদ বলেন, অপরাধপ্রবণ সরকার বেশি দিন ক্ষমতায় থাকলে রাষ্ট্রের প্রাণশক্তি বলে আর কিছুই থাকবে না। এদের একমাত্র প্রতিষেধক হচ্ছে- ব্যাপক গণআন্দোলনে তাদের উৎখাত করা। আমরা সেদিকে এগিয়ে যাচ্ছি। আন্দোলন রুখতে সরকার সারা দেশে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নতুন করে গ্রেপ্তার করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে। ক্রসফায়ার এনকাউন্টার বন্দুকযুদ্ধ সরকারের একমাত্র অর্জন। তাই প্রতিনিয়ত চলছে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা ও প্রেপ্তাার বাণিজ্য। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসনকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে আটকিয়ে রাখা হয়েছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, উচ্চ আদালত ড. মোশাররফকে জামিন দিলেও তাকে আটকে রাখা হয়েছে হীন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে। সরকার হত্যা, গুম-খুনের মাধ্যমে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে চায়। একই সঙ্গে তোবা গ্রুপের শ্রমিকদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে তাদের বকেয়া বেতন-ভাতা দ্রুত পরিশোধের দাবি জানান তিনি। সংবাদ সম্মেলনে যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

 

আপডেট : মঙ্গলবার ৫ আগষ্ট,২০১৪/ ০১:০৪ এএম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর