বালিয়াকান্দি উপজেলার সোনাপুর বাজারে মোটর সাইকেল চোর সন্দেহে এক ব্যক্তিকে গণধোলাই

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ ,১৬ আগস্ট, ২০১৪ | আপডেট: ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ ,১৬ আগস্ট, ২০১৪
পিকচার

বালিয়াকান্দি প্রতিনিধি : রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের সোনাপুর বাজারে ১৫আগষ্ট শুক্রবার সকালে আঃ রাজ্জাক(৩২) নামে এক ব্যক্তিকে মোটর সাইকেল চোর চক্রের সদস্য সন্দেহে গণধোলাই দিয়ে থানায় সোপর্দ করে স্থানীয় জনতা।

নবাবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ রফিকুল ইসলাম বাচ্চু জানিয়েছেন, উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের সোনাপুর বাজার ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ একটি সংঘবদ্ধ চোর চক্র মটর সাইকেল সহ বিভিন্ন মালামাল চুরি করে আসছিল। বিষয়টি অনেকেই অবগত থাকলেও হাতে নাতে ঐ চক্রকে ধরতে না পারায় কেউ কিছু বলতে সাহস পাচ্ছিল না। নবাবপুর ইউনিয়নের বকশিয়াবাড়ী গ্রামের দেলোয়ার মিয়ার পুত্র আক্কাছ মিয়ার বাড়ীর রান্না ঘরের দরজা ভেঙ্গে একটি ১০০ সিসি হিরো স্পিলিন্ডার প্লাস মটর সাইকেল ঢাকা মেট্রো-হ-১১-০৯০৯ চুরি হয়ে যায়। এ ব্যাপারে আক্কাস মিয়া বাদী হয়ে বালিয়াকান্দি থানায় গত ২২ জুলাই জিডি করে। জিডি নং- ৭২৩। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মটর সাইকেলের মালিক সন্দেহ পূর্বক নবাবপুর ইউনিয়নের বড় হিজলী গ্রামের ওয়াজেদ আলীর পুত্র আঃ রাজ্জাক (৩২) কে আটক করে স্থানীয় লোকজন জিজ্ঞাসাসহ মারপিট করলে মটর সাইকেল চুরির কথা স্বীকার করে। পরবর্তীতে চোরকে উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ ও আমার সামনে হাজির করলে জিজ্ঞাসায় অকোপটে মটর সাইকেল চুরির কথা স্বীকার করে ও তার সাথে আরও ৪ জন সদস্য রয়েছে বলে জানায়। পরে গতকাল শুক্রবার সকালে চৌকিদার দিয়ে বালিয়াকান্দি থানা পুলিশে সোপর্দ করলে থানার ওসি আবু শামা মোহাম্মদ ইকবাল হায়াৎ জনতার হাতে ধৃত আঃ রাজ্জাককে নিতে অস্বীকার করলেও পরে তাকে প্রথমে বালিয়াকান্দি হাসপাতাল ও আশঙ্কাজনক অবস্থায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

গণপিটুনীর শিকার রাজ্জাক শেখের পিতা ওয়াজেদ শেখ জানান, তার পুত্র রাজ্জাক ওরফে রাজা গত বৃহস্পতিবার সোনাপুর বাজারে বাড়ীর বাজার করতে গেলে নবাবপুর ইউনিয়নের বকশিয়াবাড়ী গ্রামের দিলু মিয়ার ছেলে সাধু মিয়া, বাবু মিয়া, আক্কাস মিয়া, সিরাজ মিয়ার ছেলে নুরু মিয়া, ইব্রাহিম মিয়া, আরিফ মিয়া মিলে তাকে ধরে চোর চোর চিৎকার করে মারপিট শুরু করে। তার কাছ থেকে চুরির বিষয়ে জোড়পুর্বক স্বীকারোক্তি আদায় করতে পিটুনী দিয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। তাকে ফরিদপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে তিনি মামলা দায়ের করবেন বলে জানিয়েছেন। তিনি আরো দাবী করেন, তাহার ছেলে কোন প্রকার চুরির সাথে জড়িত নেই। তার চুরির কোন নামও কোনদিন ছিল না। শত্রু“তাবসতঃ তাকে চুরির অপবাধ দিয়ে গণপিটুনী দিয়েছে। তিনি তার ছেলেকে বিনা অপরাধে মারপিটের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবী করেন।

 

 

আপডেট : শনিবার ১৬ আগষ্ট,২০১৪/ ০৪:৪৩ পিএম/ আশিক


এই নিউজটি 1184 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments