দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভুলে সকলে মিলেমিশে কাজ করার প্রত্যয় ॥ উৎসবমুখর পরিবেশে রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ২ ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৬:০০ অপরাহ্ণ ,৩ এপ্রিল, ২০১৪ | আপডেট: ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ ,৪ এপ্রিল, ২০১৪
পিকচার

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এডঃ এম.এ খালেক, ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা সাঈদ আহম্মেদ খান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনূর আক্তার বিউটি গত  ২ এপ্রিল দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন। উৎসবমুখর পরিবেশে দায়িত্বভার গ্রহণের পর তারা দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ভুলে সকলে মিলেমিশে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সকালে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এডঃ এম.এ খালেক, ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা সাঈদ আহম্মেদ খান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনূর আক্তার বিউটি দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে জেলা বিএনপি কার্যালয় প্রাঙ্গনে সমবেত হন। সেখান থেকে ঠিক ১১টার দিকে তারা ১৯ দলীয় ঐক্যজোটের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীকে সাথে নিয়ে মোটর শোভাযাত্রাসহ সদর উপজেলা পরিষদে গমন করেন। উপজেলা পরিষদে গিয়ে তারা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম খুরশিদ-উল-আলমের অফিস কক্ষে গিয়ে বসেন। এ সময় জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি রোকন উদ্দিন চৌধুরী, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি কাজী আব্দুল মতিন, জেলা বিএনপির সাবেক আহবায়ক নঈম আনছারী, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ.কে.এম ইকবাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক কে.এ সবুর শাহীন, সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল হোসেন গাজী, রাজবাড়ী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আহসানুল করিম হিটু এবং বিএনপি নেতা মোশারফ হোসেন সুমন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ওই সময় সদর উপজেলা পরিষদের হলরুমে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীর উপস্থিতিতে বিদায়ী চেয়ারম্যান এডঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাসের বিদায় সংবর্ধণা চলছিল। এডঃ খালেক, মাওলানা সাঈদ ও বিউটি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস কক্ষে অপেক্ষমান থাকাবস্থার একপর্যায়ে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী, বিদায়ী চেয়ারম্যান এডঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাস ও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম খুরশিদ-উল-আলম সেখানে উপস্থিত হন এবং পারস্পরিক কুশলাদী ও শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে এডঃ এম.এ খালেক. মাওলানা সাঈদ আহম্মেদ খান ও শাহীনূর আক্তার বিউটিকে নিয়ে সদর উপজেলা চেয়ারম্যানের অফিসে গমন করেন। এরপর সেখানে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলীর উপস্থিতিতে বিদায়ী চেয়ারম্যান এডঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাস আনুষ্ঠানিকভাবে চেয়ার বদল, গাড়ীর চাবি ও স্টাফদের বুঝিয়ে দেয়ার মাধ্যমে এডঃ এম. এ খালেকের কাছে ক্ষমতা (দায়িত্ব) হস্তান্তর করেন।

দায়িত্বভার বুঝে পাওয়ার পর এডঃ এম.এ খালেক, মাওলানা সাঈদ আহম্মেদ খান এবং শাহীনূর আক্তার বিউটি সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে পরিষদের প্রথম সভায় যোগদান করেন।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদানকালে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবার-পরিকল্পনাসহ সব বিভাগের লোকজন ঠিকমতো কাজ করছে কিনা তা দেখার দায়িত্ব উপজেলা চেয়ারম্যানের। আমাদের দেশটা কৃষি নির্ভর বলে কৃষির বিষয়টিকে বেশী গুরুত্ব দিতে হবে। এখানে কোন পলিটিক্স নাই। আমি কখনো কে বিএনপির কে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান তা দেখি নাই। আশা করি নতুন চেয়ারম্যানও দলমত নির্বিশেষে সুষ্ঠু-নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। তিনি নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের নেতৃত্বে সুন্দরভাবে উপজেলা পরিষদ পরিচালিত হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এডঃ এম.এ খালেক বলেন, প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় আল্লাহ্র প্রতি শুকরিয়া এবং জনগণকে শুভেচ্ছা জানাই। এখানে আমরা দলমত নির্বিশেষে সকলে মিলেমিশে কাজ করব। কোন মানুষ যাতে আমাদের কাছে এসে হয়রানীর শিকার না হয় সেদিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখতে হবে। কেউ এলে যতদ্রুত সম্ভব তার কাজ করে দিতে হবে। ৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে মাত্র ২৬৮৮ ভোটে পরাজিত হয়েছিলাম। ৯৩ সালের উপ-নির্বাচনে বড় ভাই কাজী কেরামত আলীর কাছে ৫১৯৬ ভোটে হেরে যাই। ২০০৯ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলাম। ২০১৪ সালে এসে জনগণ আমাকে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করলো। আশা করি আমাদের মধ্যে কোন দ্বিধা-দ্বন্দ্ব থাকবে না। সবার সাথে আমরা সহানুভূতিশীল আচরণ করব। স্টেশনের সামনে আমার একটি চেম্বার এবং তার সঙ্গে ছোট্ট একটু বাসা আছে, লক্ষ্মীকোলে একটি বাড়ী আছে। আপনারা কোর্টে,চেম্বার, বাসায়, বাড়ীতে, অফিসে যেখানে খুশী সেখানে গিয়েই পাবেন। যে কোন সমস্যায় আমাকে ডাকলে আপনাদের পাশে পাবেন।

ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা সাঈদ আহম্মেদ খান বলেন, আল্লাহর উপর ভরসা রেখে আমরা যাতে সদর উপজেলাটাকে সাজাতে পারি, জাতি ও দেশের জন্য কাজ করতে পারি সেই কামনা করছি।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনূর আক্তার বিউটি বলেন, আগের বার নির্বাচিত হয়েও জনগণের জন্য কাজ করতে পারিনি-সে সুযোগ ছিল না। তারপরেও এখানে আবার আসতে পারব, সময় কাটাতে পারব ভাবিনি। দিনগুলো যাতে ভাল যায়, মানুষের জন্য যাতে কাজ করতে পারি-সেই কামনা করি।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম খুরশিদ-উল-আলমের সভাপতিত্বে এবং সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ রকিব উদ্দিনের পরিচালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন চন্দনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক শিকদার।

সভা শেষে এডঃ এম.এ খালেক, মাওলানা সাঈদ আহম্মেদ খান এবং শাহীনূর আক্তার বিউটি তাদের স্ব স্ব অফিস কক্ষে গিয়ে বসেন। সেখানে রোকন উদ্দিন চৌধুরী, কাজী আব্দুল মতিন, নঈম আনছারী, এ.কে.এম ইকবাল হোসেন, কে.এ সবুর শাহীন, সভাপতি আবুল হোসেন গাজী, চৌধুরী আহসানুল করিম হিটু এবং মোশারফ হোসেন সুমনের নেতৃত্বে জেলা বিএনপি, শুরা ও কর্মপরিষদ সদস্য সোলায়মান মুন্সীর নেতৃত্বে জেলা জামায়াতে ইসলামী, আমীর মোঃ আলীমুজ্জামান ও সেক্রেটারী ডাঃ মোঃ হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে পৌর জামায়াতে ইসলামী এবং সভাপতি মোঃ কবীর হোসেন এবং সেক্রেটারী মোঃ মোশারফ হোসেনের নেতৃত্বে জেলা ইসলামী ছাত্র শিবির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এর মধ্যে উপস্থিত সকলকে মিষ্টিমুখ করানো হয়।

দুপুর ১টার দিকে এডঃ এম.এ খালেক বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতাকর্মীর সাথে অফিস ত্যাগের সময় তিনিসহ বিএনপি নেতা আবুল হোসেন গাজী, একেএম ইকবাল হোসেন এবং চৌধুরী আহসানুল করিম হিটু উপস্থিত বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন। সেখানে বক্তব্য প্রদানকালে বিএনপি নেতৃবৃন্দ এডঃ খালেক, মাওলানা সাঈদ ও বিউটির নেতৃত্বে সদর উপজেলা পরিষদ সুন্দরভাবে পরিচালিত হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন এবং যে কোন প্রয়োজনে তাদেরকে সর্বাত্মক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দেন। এডঃ এম.এ খালেক বলেন, প্রথম পর্যায়ের নির্বাচনে কিছুটা নিরপেক্ষতা থাকায় এবং দলীয় নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করায় তাদের বিজয় কেউ রুখতে পারেনি। এ জন্য তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি গভীরভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং যারা নির্বাচনের সময় কাজ করেছিল তাদেরকে নিয়ে অচিরেই একটি আনন্দ আয়োজন করার প্রতিশ্রুতি দেন। এরপর এডঃ খালেক তার সরকারী গাড়ীযোগে উপজেলা ত্যাগ করেন।

 

 


এই নিউজটি 1556 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments