রাজবাড়ীর ডাঙ্গিপাড়ায় জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প এর আওতায় রোপা আমন ধানের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১২:২৪ অপরাহ্ণ ,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ১২:২৪ অপরাহ্ণ ,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
পিকচার

নিজস্ব প্র্রতিবেদক : রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের ডাঙ্গিপাড়ায় গতকাল ১৭ই সেপ্টেম্বর বিকেলে জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প এর আওতায় রোপা আমন ধানের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের আয়োজনে মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ নাসির উদ্দীন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় ভূমি জোনিং প্রকল্প এগ্রিকালচার স্পেশালিস্ট ড. এস,এম আতিকুল্লাহ ও অতিরিক্ত উপ উপ-পরিচালক দেবেশ চক্রবর্তী। অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ রকিব উদ্দিন। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন আদর্শ কৃষক লাল মিয়া। অন্যান্যের মধ্যে রামকান্তপুর ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মোক্তার হোসেন মিয়া ও শহীদ ওহাবপুর ইউনিয়নের উপ-সহকারী কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান।

অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন সদর উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অরুন চক্রবর্তী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ নাসির উদ্দীন বলেন, দেশ স্বাধীনের সময় বাংলাদেশের লোক সংখ্যা ছিল সাড়ে ৭ কোটি। এখন বাংলাদেশের লোক সংখ্যা সাড়ে ১৬ কোটি। আমাদের দেশে দিন দিন জন সংখ্যা বাড়ছে। অপর দিকে ফসলী জমি কমছে। এরপরও এখন আর বাংলাদেশের মানুষকে না খেয়ে মরতে হয়না। কারণ নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে এদেশের কৃষকরা এখন আগের চেয়ে অনেক বেশী ফলন উৎপাদন করছে। তিনি বলেন এই এলাকায় দুইটি নতুন জাতের ধান দিয়েছি। এগুলো হলো বিনা-৭ ও বারি-৬২। এ দুটি ধানের বৈশিষ্ট আছে। বাংলাদেশের নদী ভাঙ্গন কবলিত এলাকা বিশেষ করে রংপুরে আগে প্রতি বছরই মঙ্গা দেখা দিতো। সাধারণ মানুষ অসহায় হয়ে পড়তো। বিনা-৭ ধান চাষ করে এখন আর ওই এলাকায় মঙ্গা দেখা দেয় না। বিনা-৭ ধান আসায় সেই অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। তিনি বলেন প্রতি বিঘায় বিনা-৭ ধান ১৭/১৮ মন হয়। বিরি-৬২ ধানেরও একটা বৈশিষ্ট আছে। ১২০ দিনে এই ধান হয়। এতো অল্প দিনে ধান উৎপাদন আগে কেউ বিশ্বাস করতো না। তিনি বলেন গত বছর বাংলাদেশে ৫ কোটি মেঃটন ধান উৎপাদন হয়েছে। আধুনিক পদ্ধতিতে বীজ সংরক্ষণ করায় ২৫লক্ষ মেঃটন ধান সাশ্রয়ী হচ্ছে। তিনি সকল কৃষককে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের পরামর্শে নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করার পরামর্শ দেন।

 

আপডেট : বৃহস্পতিবার সেপ্টেম্বর ১৮,২০১৪/ ০৬:২৩ পিএম/ আশিক

 

 


এই নিউজটি 1129 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments