ঈদে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে চলাচল করবে ১৮ ফেরী-৩৭টি লঞ্চ

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ২:০৬ অপরাহ্ণ ,২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ২:০৬ অপরাহ্ণ ,২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
পিকচার

নিজস্ব প্র্রতিবেদক : আসন্ন ঈদ-উল আযহা ও শারদীয়া দূর্গা পূজা উপলক্ষে নিরাপদ নৌ চলাচল এবং যাত্রীদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের প্রবেশদ্বার খ্যাত রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট এলাকার যানজট ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত বিষয়ে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ২২ সেপ্টেম্বর সোমবার সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তোফায়েল আহম্মেদ, বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা ঘাটের যুগ্ম-পরিচালক একেএম শাহজাহান হোসেন, উপ-পরিচালক(বন্দর পরিবহন) এনামুল হক ভুঁইয়া, এজিএম(মেরিন) আঃ সোবহান, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবিএম নুরুল ইসলাম মিয়া, গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার পঙ্কজ ঘোষ, বিআইডব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া ঘাটের এজিএম(কমার্স) মোঃ সফিকুল ইসলাম, উপ-পরিচালক তাজ উদ্দিন আহম্মেদ, লঞ্চ মালিক আঃ রশিদ মল্লিক, আনছার আলী, ইউসুফ শিকদার, আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা, গোয়ালন্দ ঘাট, রাজবাড়ী সদর থানা, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর ও দৌলতদিয়া ঘাট নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির আইসি, জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সহিদ উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম শাহীন, জেলা ট্রাক মালিক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দিদারুল হক হিরা, সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান হাসান, জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন সাহা ও সাধারণ সম্পাদক আঃ রশীদ এবং বাস মালিক সমিতির প্রতিনিধিগণ মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহন করেন।

মতবিনিময় সভায় দেয়া দিক-নির্দেশনা মূলক বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান আসন্ন ঈদ-পূঁজার পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সময়ে দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবহারকারীদের ভোগান্তি এড়ানো ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোকপাত করেন এবং ঐ সময়ে ঘাট সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীল হওয়ার আহবান জানান।

সভায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌ-রুটে ১৮টি ফেরী ও ৩৭টি লঞ্চ চলাচল নিশ্চিতকরণ এবং ঈদের ৩দিন পূর্বে ও পরে কোরবানী পশু এবং পচনশীল খাদ্যদ্রব্য পরিবহনকারী ট্রাক ব্যতিত অন্যান্য পণ্যবাহী ট্রাক দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে পারাপার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।

এছাড়াও সভায় আলোচনাক্রমে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা, পর্যাপ্ত লাইটিংয়ের ব্যবস্থা, অস্থায়ী টয়লেট ও টিউবওয়েল স্থাপন, লঞ্চে ওঠার সিঁড়ি প্রশস্ত করা, নৌ-চ্যানেলের প্রয়োজনীয় ড্রেজিং, দায়িত্ব পালনকারী বিআইডব্লিউটিসি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরিচয়পত্র গলায় ঝুলিয়ে রাখা, কুলিদের ইউনিফর্ম ব্যবহার, টার্মিনাল প্রস্তুত রাখাসহ মোট ২৪টি গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

উল্লেখ্য,  ২২ সেপ্টেম্বর সোমবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সকাল ৯টায় আন্তর্জাতিক তথ্য জানার অধিকার দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা এবং সকাল ১০টায় জেলা মানসম্মত শিক্ষা বিস্তার, জনসেবা অবহিতকরণ ও দুর্নীতি বিরোধী উদ্বুদ্ধকরণ সভা, বেলা ১২টায় জেলা এনজিও সমন্বয় কমিটির সভা এবং বেলা ১টায় প্রতিবন্দীদের পুনর্বাসনে গঠিত জেলা টাস্কফোর্সের সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

আপডেট : মঙ্গলবার সেপ্টেম্বর ২৩,২০১৪/ ০৮:০৬ পিএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1108 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments