উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্যেও থেমে নেই মহাসড়কে অবৈধ যান চলাচল

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ২:৫৪ পূর্বাহ্ণ ,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ২:৫৪ পূর্বাহ্ণ ,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
পিকচার

রবিউল ইসলাম : উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও মহাসড়কে চলাচল করছে নছিমন, করিমন, বডবডি, ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকসহ বিভিন্ন অবৈধ যানবাহন। এগুলো বন্ধের কোনো উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন। ১৫সেপ্টেম্বর অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধে ৭২ ঘণ্টা সময়সীমা বেধে দিয়েছিল উচ্চ আদালত।

রাজবাড়ী থেকে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট ও রাজবাড়ী শেষ সিমানা ফরিদুপর, কুষ্টিয়া, পর্যন্ত সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্যালো মেশিন ও ব্যাটারি চালিত অবৈধ যানবাহন মহাসড়কে গরুবোঝাই ও বিভিন্ন ধরনের মালামাল সহ যাত্রী নিয়ে অবাধে চলাচল করছে।

যান্ত্রিক সমস্যার কারনে এসকল অবৈধ যানবাহন মাঝে মধ্যেই মাঝপথে বিকল হয়ে পরে থাকতে দেখা যায়। শুধু তাই নয় বেশির ভাগ চালক রাতে লাইট না জ্বালিয়েই চলাচল করে। আর এ কারনে মাঝে মধ্যেই ঘটে র্দুঘটনা। এছাড়া স্যালো মেশিনযুক্ত অবৈধ যানবাহন অত্যন্ত বিকট শব্দে মহাসড়কে চলাচল করছে।

পুলিশ প্রশাসনের কোনো মনিটরিং না থাকায় কোনো অভিজ্ঞতা ছাড়াই এরা অবাধে মহাসড়কে চলাচল করছে। এতে যাত্রী চলাচলে কিছুটা সুবিধা হলেও প্রায়ই ইজিবাইকগুলো ছোট-বড় দুর্ঘটনার শিকার হয়ে হতাহতের ঘটনা ঘটছে।

গোয়ালন্দ পৌরসভায় নিয়োজিত ইজারাদার ও কথিত অটোচালক সমিতি এ যানবাহনগুলো থেকে প্রতিদিন মোটা অঙ্কের চাঁদা আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে দীর্ঘদিন ধরে এভাবে যানাবাহনগুলো চলাচল করে আসছে। কিন্তু উচ্চ আদালতের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনার পর এসব অবৈধ যান চলাচল বন্ধের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না।

মো. খোকন মিয়া, মাসুদ শেখ সহ একাধীক মাহেন্দ্রা চালক বলেন, আমরা লাইসেন্স ও রুট পারমিটের জন্য নিয়মিত চেষ্টা করছি। তাছারাও বিভিন্ন সময় আন্দলোন করেছি। কিন্তু অনুমতি না পাওয়ায় পুলিশসহ বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে চলাচল করতে হচ্ছে।

তারা আরো বলেন, আমরা অনেকই বিভিন্ন সমিতি থেকে লোন বা উচ্চ শুদে টাকা নিয়ে ৫/৬ লক্ষ টাকা দিয়ে এক একটি মাহেন্দ্র কিনেছি। যদি মহাসড়কে চলাচল করতে না দেওয়া হয় তবে আমাদের পরিবার নিয়ে পথে বসা ছারা আর কোন উপায় থাকবে না। সরকার এসব যানবাহন থেকে ট্যাক্স নিলেও চলাচলের অনুমতি দিচ্ছে না।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)’র দায়িত্বে থাকা মো. মিজানুর রহমান জানান, মহাসড়কে আমারা কোন অবৈধ যানবাহন চলাচল করতে দিচ্ছি না। তবে তারা অনেক সময় পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন বাইপাস রোডে চলাচল করে।

 

 

আপডেট : রবিবার সেপ্টেম্বর ২৮,২০১৪/ ০৮:৪৬ পিএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1552 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments