পাংশায় পূজা উৎসবের নির্মানাধীন তোরণের নিচ দিয়ে আলু বোঝাই ট্রাক পার হতে না পারায় গোলযোগ : সন্ধ্যায় মীমাংশা

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৫:২৭ অপরাহ্ণ ,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ৫:২৭ অপরাহ্ণ ,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
পিকচার

মোক্তার হোসেন : রাজবাড়ীর পাংশা শহরস্থ স্টেশন বাজার সার্বজনীন কেন্দ্রীয় দুর্গা মন্দিরের সামনে সড়কে আসন্ন শারদীয় পূজা উৎসবের জন্য নির্মানাধীন তোরণের নিচ দিয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর রোববার সকালে আলু বোঝাই একটি ট্রাক কাঁচাবাজারের আড়তে যাওয়ার সময় ওই তোরণে বাধা পেয়ে পার হতে না পারায় সৃষ্ট গোলযোগে পাংশা কাঁচা বাজারের আড়তদারের লোকজনের হামলায় পৌরসভা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক গৌতম বসাক (৩৫)সহ ৪জন আহত ও নির্মানাধীন তোরণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অপর আহতরা হলেন, শাহিন ডেকোরেটরের মালিক শাহিনুর রহমান (৩২) এবং তার কর্মচারী আল-আমিন (২৯) ও সাহেব আলী (৩২)।

জানা গেছে, রংপুর থেকে আলু বোঝাই ট্রাক (নং ঢাকা মেট্রো-ট-১৪-৪৭৬১) নিয়ে ট্রাকের ড্রাইভার মোন্তাজ (ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ থানার সুবিদপুর গ্রামের আইয়ুব আলীর পুত্র) রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে পাংশা শহরের কাঁচাবাজারের আড়তে যাওয়ার পথে ঘটনাস্থলে নির্মানাধীন তোরণের নিচ দিয়ে ট্রাকটি পার হতে পারছিল না। এ নিয়ে আড়তের লোকজনের সাথে তোরণ নির্মান শ্রমিকদের বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে আড়তদার আকবর আলী ও সবুরের নেতৃত্বে ১৮-২০জনের একটিদল তোরণ ভাংচুর করতে হামলা চালায়। হামলায় পৌরসভা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক গৌতম বসাক, শাহিন ডেকোরেটরের মালিক শাহিনুর রহমান এবং তার কর্মচারী আল-আমিন ও সাহেব আলী আহত হয় এবং তোরণটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। খবর পেয়ে পাংশা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং কাঁচাবাজার আড়তে অভিযান চালিয়ে কয়েকজনকে আটক করেন।

এ নিয়ে সনাতন হিন্দু ধর্মের লোকজনের মাঝে প্রচন্ড ক্ষোভের সৃষ্টি হলে ঘটনার পরপরই স্টেশন বাজার সার্বজনীন কেন্দ্রীয় দুর্গা মন্দিরে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়ে দুপুর ১২টার দিকে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ মামলা করতে পাংশা থানায় যান। এ পর্যায়ে উদ্ভূত পরিস্থিতির শান্তিপূর্ণ মীমাংশা করতে উদ্যোগ নেন পাংশা পৌরসভার মেয়র মোঃ ওয়াজেদ আলী মাষ্টার এবং এ ব্যাপারে তিনি রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিমের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সে আলোকে সন্ধ্যায় পাংশা পৌরসভা মিলনায়তনে প্রশাসনিক কর্মকর্তাবৃন্দ, পৌরসভার মেয়র, বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ, পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ ও উভয় পক্ষের লোকজনের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে ঘটনার শান্তিপূর্ণ মীমাংশা করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

 

 

আপডেট : রবিবার সেপ্টেম্বর ২৮,২০১৪/ ১১:২৫ পিএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1074 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments