অপারেশন আহলাদীপুর ব্রীজ : মোর্তজা আহম্মদ শিমুল

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ ,১৩ অক্টোবর, ২০১৪ | আপডেট: ৬:১৬ অপরাহ্ণ ,১৩ অক্টোবর, ২০১৪
পিকচার

কয়েকদিন ধরেই রেকি করছে মুক্তিযোদ্ধা খুশী এবং তার দলবল। রাজবাড়ী শহর ও আশপাশের এলাকাগুলোর কোথায়, কখন, কিভাবে শত্রুর ডেরায় আঘাত হেনে নিরাপদে বেরিয়ে যাওয়া যাবে, সে পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য আগে থেকেই শত্রুর অবস্থানগুলোর চারপাশে বিভিন্ন ছদ্মবেশ ধারণ করে ঘুরে বেড়াচ্ছে তারা।

রিক্সাওয়ালা সেজে খানকা পাক বড় মসজিদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় মনাক্কা ভাইয়ের বাড়ীর সামনে একটু দাঁড়িয়ে পড়ল সে। বাংলাদেশে ঢোকার আগে মনাক্কা ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হয়েছিল। তিনি বলেছিলেন দেশে গিয়ে খুশী যেন তার বাড়ী ও পরিবার-পরিজনদের খোঁজ নেয়। বেশীক্ষণ অবস্থান করলে সন্দেহ সৃষ্টি হতে পারে, সে কারণে পরিত্যক্ত বাড়ীটির সামনে বেশী সময় দাঁড়াল না। ইতিমধ্যেই সে জানতে পেরেছে মনাক্কা ভাইয়ের পরিবার-পরিজন জৌকুড়ায় গ্রামের বাড়ীতে আত্মগোপনে নিরাপদেই আছেন। খুশী তার রিক্সাটি দ্রুত রাজবাড়ী শহরের প্রধান সড়কের উপরে নিয়ে গেল। পৌরসভা অফিসের সামনে থেকে একজন প্যাসেঞ্জারকে রিক্সায় উঠিয়ে রওনা হলো শ্রীপুরের দিকে। এমনিভাবে প্যাসেঞ্জার উঠা-নামার ভিতর দিয়ে তার রিক্সা পৌঁছাল আহলাদীপুর জামাই পাগলের রাস্তার মোড়ে। সেখানে যাত্রীকে নামানোর পরপরই রাইফেল কাঁধে দুইজন বিহারী যুবক গতিরোধ করে দাঁড়াল খুশীর রিক্সাকে। খুশী একটু ভীত হয়ে পড়ল, ভাবল ওরা কি বুঝতে পেরেছে যে-সে মুক্তিযোদ্ধা, কিন্তু না