রাজবাড়ী জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদকসহ ৫জন জেল হাজতে : শহরে উত্তেজনা

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৭:০৯ পূর্বাহ্ণ ,১৫ অক্টোবর, ২০১৪ | আপডেট: ৭:০৯ পূর্বাহ্ণ ,১৫ অক্টোবর, ২০১৪
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : রাজবাড়ী জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক সুকুমার ভৌমিকসহ ৫জনকে কারাগারে প্রেরনের খবর শুনে গতকাল ১৪ অক্টোবর দুপুরে শহরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ জের ধরে মুরগীর ফার্ম ও শ্রীপুর টার্মিনাল এলাকায় সড়কে বাস দিয়ে বেরিকেট দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তোফায়েল আহম্মেদ ও সহকারী পুলিশ কাজী আহসান হাবীব এবং সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহিদুল ইসলামসহ পুলিশ ফোর্স মাঠে নেমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

জানা যায়, রাজবাড়ী জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের দ্বন্দের জেরে গত ৯অক্টোবর রাজবাড়ী থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের হয়। গত ৮অক্টোবর দুপুর ২টার দিকে পূর্ব শক্রতার জেরে রাজবাড়ী জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি রনজিৎ সরকার টিটু, সজ্জনকান্দা গ্রামের মৃত আফজাল হোসেনের ছেলে ফকরুল হাসান (৫২), গঙ্গাপ্রসাদপুর গ্রামের আঃ সাত্তার (৪০), লক্ষীকোল গ্রামের মৃত মনিন্দ্র নাথ মন্ডলের ছেলে প্রফুল্ল মন্ডল (৪৫) ও বিনোদপুর লেকপাড়া গ্রামের মিজান (৩৩) জেলা কার্যালয়ের দোতলায় কার্য্য নির্বাহী পরিষদের সভা কক্ষে প্রবেশ করে সংস্থার কাজ করার সময় কোষাধ্যক্ষ কুনজন কান্তি সরকার ও সাধারন সম্পাদক সুকুমার ভৌমিককে পিস্তল ঠেকিয়ে মারপিট করে। এছাড়াও তারা কুনজন কান্তি সরকারের শার্ট ছিড়ে ফেলে। এরপর উল্লেখিতরা তাদেরকে এ ব্যাপারে মামলা মোর্কদ্দমা না করার জন্য নানা প্রকার ভয়ভীতি দেখিয়ে ঘটনাস্থল থেকে চলে আসে।
এ ঘটনায় জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের কোষাধ্যক্ষ সজ্জনকান্দা গ্রামের মৃত কালীপদ সরকারের ছেলে কুনজন কান্তি সরকার বাদী হয়ে ১৪৩/৪৪৮/৩২৩/৩০৭/৫০৬ দঃবিঃ ধারায় গত ৯অক্টোবর রাজবাড়ী থানায় উল্লেখিতদের বিরুদ্ধে মামলা নং-৯ দায়ের করে।

অপরদিকে, একই দিন, সময় ও স্থান উল্লেখ করে এম.এম পরিবহনের মালিক এ,কে,এম,ডি মোরতোজা (৬৬) বাদী হয়ে জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক সুকুমার ভৌমিক, কোষাধ্যক্ষ কুনজন সরকার, গোবিন্দ কর্মকার, বিপ্লব ও ফজলুর রহমানকে আসামী করে অপর একটি মামলা দায়ের করে। রাজবাড়ী থানার মামলা নং-১১, তাং-৯/১০/২০১৪। ধারাঃ ১৪৩/৩২৩/৩০৭/৩৮৭/৫০৬/১১৪ দঃবিঃ। মামলায় অভিযোগ করা হয়, এ,কে,এম,ডি মোরতোজা কুমারখালী-রাজবাড়ী ও সোনাপুর-রাজবাড়ী-ঢাকা রুটে এম.এম পরিবহনের মালিক। উল্লেখিতরা তার ব্যবসা ক্ষতি করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে ষড়যন্ত্র করে আসছিল। এ জের ধরে গত ৮অক্টোবর দুপুর ২টার দিকে জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ের ২য় তলায় উল্লেখিতরা তাকে মারপিট করাসহ গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। এছাড়াও তারা এ রুটে ব্যবসা করতে হলে তার কাছে ৫লক্ষ টাকার চাঁদার দাবী করে। এ সময় তার চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে গত ৯অক্টোবর রাজবাড়ী থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

সূত্র জানায়, গত ১২ অক্টোবর কোষাধ্যক্ষ কুনজন কান্তি সরকারের দায়েরকৃত মামলায় সংগঠনের সভাপতি রনজিৎ সরকার টিটু, ফকরুল হাসান, আঃ সাত্তার, প্রফুল্ল মন্ডল ও মিজান আদালতে স্বেচ্ছায় হাজির হয়ে আদালতে জামিনের প্রার্থনা করলে আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। এছাড়াও গতকাল ১৪ অক্টোবর এম.এম পরিবহনের মালিক এ,কে,এম,ডি মোরতোজা’র দায়েরকৃত মামলায় জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক সুকুমার ভৌমিক, কোষাধ্যক্ষ কুনজন সরকার, গোবিন্দ কর্মকার, বিপ্লব ও ফজলুর রহমান স্বেচ্ছায় আদালতে হাজির হয়ে জামিনের প্রার্থনা করে।

আদালতের বিজ্ঞ বিচারক জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোস্তফা রেজানুর আসামীদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ গুরুতর ও অজামিনযোগ্য এবং দায়রা আদালতে বিচারাধীন বলে সার্বিক বিবেচনা করে তাদের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

এদিকে জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সাধারন সম্পাদক সুকুমার ভৌমিক, কোষাধ্যক্ষ কুঞ্জন সরকার, গোবিন্দ কর্মকার, বিপ্লব ও ফজলুর রহমানকে জেল হাজতে প্রেরনের খবর ছড়িয়ে পড়লে দুপুর ২টার দিকে মুরগীর ফার্ম বাসস্ট্যান্ডে রাজবাড়ী-বালিয়াকান্দি সড়কে ও রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া সড়কে এবং শ্রীপুর বাসস্ট্যান্ডে বাস দিয়ে বেরিকেট দিয়ে যানচলাচল বন্ধ করে দেয় তাদের সমর্থনেরা। এ সময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তোফায়েল আহম্মেদ ও সহকারী পুলিশ কাজী আহসান হাবীব এবং সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহিদুল ইসলামসহ পুলিশ ফোর্স মাঠে নেমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

 

 

আপডেট : বুধবার অক্টোবর ১৫,২০১৪/ ‌১২:৫৫ পিএম/ আশিক

 

 

 

 


এই নিউজটি 1145 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments