পাংশায় দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত ২০ : দোকানপাট ভাংচুর-লুটপাটের অভিযোগ

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৫:০৮ পূর্বাহ্ণ ,১৮ অক্টোবর, ২০১৪ | আপডেট: ৫:০৯ পূর্বাহ্ণ ,১৮ অক্টোবর, ২০১৪
পিকচার

মোক্তার হোসেন,স্টাফ রিপোর্টার : একটি প্রীতি ফুটবল ম্যাচে সৃষ্ট গোলোযোগ মীমাংসার লক্ষ্যে গতকাল শুক্রবার বিকেলে রায়নগর সিনিয়র মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত সালিশি বৈঠকে উস্কানীমূলক কথার জের ধরে পাংশার হাবাসপুর ইউপির চরআফড়া ও কালুখালীর কালিকাপুর ইউপির রায়নগর দুই গ্রামবাসী চরআফড়া স্লুইজগেট বাজারে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের সময় বাজারের বেশ কয়েকটি দোকান ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। শরিফুল ইসলাম ও আক্তার হোসেনসহ আহতদের কয়েকজনকে পাংশা ও ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কয়েকজনের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পাংশা ও কালুখালী থানা পুলিশ ৩০-৪০ রাউন্ড সর্টগানের ফাঁকা ফায়ার করেন।শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮ পর্যন্ত ৩ ঘন্টা ব্যাপী উভয় পক্ষের লোকজন লাঠিসোটা-ধারালো আস্ত্র নিয়ে বাজারে শক্তির মহড়া দেওয়ার ফলে দোকানদার ও আশপাশের লোকজনের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে রাতেই রাজবাড়ীর এনডিসি মোঃ জামিরুল ইসলাম, পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদ হাসান ওদুদ, পাংশা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খান ও কালুখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

জানা গেছে, ঈদের দুই দিন পরে গত ৮ অক্টোবর কালুখালী উপজেলার কালিকাপুর ইউপির গোপালপুর গ্রাম ও পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউপির চরআফড়া গাংদিয়ার পাড়া যুবকদের মধ্যে জাফরপুর মাঠে প্রীতি ফুটবল খেলায় গোলযোগ হয়। ওই গোলযোগ মীমাংসা করতে গতকাল শুক্রবার বিকালে কালুখালী ও পাংশার সীমান্তবর্তী রায়নগর সিনিয়র মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে সালিশি বৈঠক বসে। কালুখালীর কালিকাপুর ইউপির চেয়ারম্যান আতিউর রহমান নবাবের সভাপতিত্বে সালিশি বৈঠকে পাংশার হাবাসপুর ইউপি চেয়ারম্যান আল মামুন খান, চর আফড়া গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা মজিবর ফকির, আলাউদ্দিন মেম্বার, কালুখালীর যুবলীগ নেতা জাকির হোসেন, রায়নগর গ্রামের হালিম মাষ্টার, সাতোটা গ্রামের শাহজাহান মাষ্টার ও ঠান্ডু বিশ্বাসসহ ২৫-৩০ জন সালিশদারসহ প্রায় ২শতাধিক লোকজন সালিশি বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকের শেষ পর্যায়ে জনৈক ব্যক্তির উস্কানীমূলক কথার জের ধরে সালিশি বৈঠকে উত্তেজন সৃষ্টি হয় এবং বৈঠক ভেঙ্গে যায়। একপর্যায়ে চরআফড়া ও রায়নগর দু’গ্রামবাসী লোকজনের মাঝে স্লুইজগেট বাজারে সংঘর্ষ বাধে। খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ভাবে পাংশা থানার ওসি মোহাম্মদ আবুল বাশার মিয়ার নেতৃত্বে পাংশা থানা পুলিশ ও বাহাদুরপুর তদন্ত কেন্দ্রের আইসি এসআই মোঃ আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে ক্যাম্প পুলিশ, কালুখালী থানার ওসি মোঃ আজিজুর রহমানের নেতৃত্বে কালুখালী থানা পুলিশ এবং রাজবাড়ী পুলিশ লাইন্স থেকে পুলিশের একটিদল ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। উভয় পক্ষের কয়েক শ’ লোকজনের লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে পরস্পর মারমুখী উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৩০-৪০ রাউন্ড সর্টগানের ফাঁকা ফায়ার করে।

সংঘর্ষের সময় হামলায় বাজারের পল্লী চিকিৎসক শাহজাহান সিরাজ আজলুর ওষুধের দোকান, হেলাল দর্জির কাপড়ের দোকান, লিটনের কসমেটিক্সের দোকান ও হাসানের কসমেটিক্সের দোকানসহ বেশ কয়েকটি দোকান ভাংচুর করা হয়েছে। এসব দোকানে লুটপাট করা হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 

 

 

আপডেট : শনিবার অক্টোবর ১৮,২০১৪/ ‌০৯:৫৮ পিএম/ আশিক

 

 

 


এই নিউজটি 1026 বার পড়া হয়েছে
[fbcomments"]