রাজবাড়ী সরকারী গণগ্রন্থাগারে জাতীয় শোক দিবসের বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৩:৫০ পূর্বাহ্ণ ,২১ অক্টোবর, ২০১৪ | আপডেট: ৩:৫০ পূর্বাহ্ণ ,২১ অক্টোবর, ২০১৪
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : রাজবাড়ী সরকারী গণগ্রন্থাগারে গতকাল ২০ অক্টোবর বিকেলে জাতীয় শোক দিবস-২০১৪ উপলক্ষ্যে গণগ্রন্থাগার কর্তৃক আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার ও সনদ বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা শিক্ষা অফিসার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান। গ্রন্থাগারিক এএইচএম কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা তথ্য অফিসার(অঃ দাঃ) মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক মাতৃকন্ঠের সম্পাদক খোন্দকার আব্দুল মতিন, ইয়াছিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা সাঈদা খানম, শাইনিং স্টার(ইংলিশ ও বাংলা ভার্সন) অধ্যক্ষ আলম আরা মিনু এবং সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ ইমরান হোসেনসহ অন্যান্যরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা শিক্ষা অফিসার সৈয়দ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বঙ্গবন্ধু যখন নিহত হন তখন আমি ছিলাম এসএসসি পরীক্ষার্থী। তিনি আমাদের মহান স্বাধীনতার স্থপতি ছিলেন। তাঁর জন্যই আমরা পাকিস্তানীদের নাগপাশ থেকে মুক্ত হতে পেরেছিলাম। পেয়েছিলাম আমাদের অতি গর্বের জাতীয় পতাকা। নিরপেক্ষ সংবাদ হিসেবে বিশ্বব্যাপী খ্যাত বিবিসির জরীপেও প্রমাণিত হয়েছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানই হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী। তাঁর পরের স্থানে রয়েছেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণটিও বিশ্বের অন্যতম সেরা ভাষণ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। যারা বঙ্গবন্ধুর নাম-নিশানা ইতিহাস থেকে মুছে ফেলতে চেয়েছিল বা চায় তাদের দুঃস্বপ্ন কোনদিন বাস্তবায়িত হবে না। একদিন তারাই ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলা তথ্য অফিসার(অঃ দাঃ) মোঃ আব্দুর রাজ্জাক জানান, বঙ্গবন্ধুর জন্যই আমরা স্বাধীন ভুখন্ড পেয়েছিলাম। তাঁর জন্ম না হলে পরাধীনতার জাল ছিঁড়ে আমরা বের হতে পারতাম না। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হৃদয়ে লালন করে স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে সকলকে ভূমিকা রাখার আহবান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে গ্রন্থাগারিক এএইচএম কামরুজ্জামান সবাইকে বই পড়ার আহবান জানিয়ে বলেন, ‘পড়িলে বই আলোকিত হই-না পড়িলে বই অন্ধকারে রই’। তিনিও বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর আলোচনা করেন এবং তাঁর আদর্শ অনুসরণের আহবান জানান।

অতিথিদের বক্তব্যের পর জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে রাজবাড়ী সরকারী গণগ্রন্থাগার কর্তৃক আয়োজিত আবৃত্তি, রচনা ও বই পড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার ও সনদ বিতরণ করা হয়।

 

আপডেট : মঙ্গলবার অক্টোবর ২১,২০১৪/ ‌০৯:৪৯ এএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1132 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments