বড়পুল থেকে শ্রীপুর বাস টার্মিনাল পর্যন্ত ফোর লেন রাস্তা করা হবে : আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৮:১৯ পূর্বাহ্ণ ,২৩ অক্টোবর, ২০১৪ | আপডেট: ৮:২৩ পূর্বাহ্ণ ,২৩ অক্টোবর, ২০১৪
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : গতকাল ২২ অক্টোবর দুপুরে রাজবাড়ী সদর উপজেলা পরিষদের প্রশাসনিক ভবন সম্প্রসারন ও হলরুম নির্মাণ কাজের ভিত্তি স্থাপন করা হয়েছে। ফিতা টেনে ফলক উম্মোচনের মাধ্যমে ভবনটির নির্মাণ কাজের ভিত্তি স্থাপন করেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী।

এ উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি কামরুন নাহার চৌধুরী লাভলী, জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডঃ এম.এ খালেক ও এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সাজ্জাদ হোসেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেওয়ান মাহাবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা প্রকৌশলী স্বপন কুমার গুহ, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এসএম নওয়াব আলী, রামকান্তপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম মোল্লা ও চন্দনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক শিকদার।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, উপজেলা পরিষদে সকল মানুষের সেবা দেয়া হয়। এই সেবার মান আরো ভাল করার জন্য সরকার সারা বাংলাদেশে উপজেলা কমপ্লেক্স ভবন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় রাজবাড়ী সদর উপজেলা কমপ্লেক্স ভবন হতে যাচ্ছে। মানুষের সেবা যাতে আরো ভালভাবে দেয়া যায় এটা আমরা যারা জনপ্রতিনিধি তাদের দায়িত্ব।

তিনি আওয়ামীলীগ সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে বলেন, রাজবাড়ীতে নির্বাচন অফিসের নতুন ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আগামী এক বছরের নির্মাণ কাজ শেষ হয়ে যাবে। খুব শীঘ্রই রাজবাড়ীতে বিদ্যুৎে সাব-ষ্টেশন হবে। শহরের বড়পুল থেকে শ্রীপুর বাস টার্মিনাল পর্যন্ত ফোর লেন রাস্তা করা হবে। এছাড়াও সরকার প্রতিটি ইউনিয়নের উন্নয়ন করার জন্য ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিচ্ছে। আগামীতে আমি কোন রাস্তাই পাবো না উন্নয়ন করার জন্য।

সংসদ সদস্য কামরুন নাহার চৌধুরী লাভলী বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের যে উন্নয়নের ধারা বয়ে যাচ্ছে তারই ধারাবাহিকতায় এই ভবন হতে যাচ্ছে। এই সরকার দেশে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখেছে। যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মিত হচ্ছে। পিটিআই ভবন নির্মিত হচ্ছে। আগে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ নেয়ার জন্য ফরিদপুরে যেত হবে এখন আর সেটা লাগবে না। রাজবাড়ীতেই হবে। আমরা সবাই এই সাফল্য যাতে সত্যিকার অর্থে সাফল্য মন্ডিত হয় সেই চেষ্টা করবো এবং বর্তমান সরকারের যুগোপযোগি পদক্ষেপ ও উন্নয়ন সবার কাছে তুলে ধরতে হবে।

জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ফসল আজকের এই ভবন। বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নতমানে দেশ হবে। আজকে বাংলাদেশের মাথা পিছু আয় ১২শ ডলার। ২০২১ সালে বাংলাদেশে মাথা পিছু আয় হবে ২১শ ডলার। সরকার সেই লক্ষ্যে পৌছানোর জন্য বিভিন্ন প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। যাতে আমরা একই ছাতার নিচে বসে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড করতে পারি। এটি সরকারের মহৎ উদ্যোগ। বাংলাদেশ একদিন বিশ্বের বুকে মাথা উচুঁ করে দাঁড়াবে। সেদিন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা বিশ্বের মানচিত্রে পত পত করে উড়বে।DSCN7103

এডঃ এম.এ খালেক বলেন, আজকে আমাদের অত্যন্ত আনন্দের দিন। কারণ উপজেলা পরিষদের কমপ্লেক্স ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন হতে যাচ্ছে। উপজেলা পরিষদের পুরাতন যে ভবনটা ছিল সেটি ভেঙে ফেলার পর দেখা গেছে ৩নম্বর ইট দিয়ে ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছিল যা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।। নতুন এই ভবনটি যাতে এমন না হয়। তিনি এই ভবনে সদর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের বসার জন্য একটা ব্যবস্থা করা যায় কিনা সে বিষয়ে এমপি মহোদয়ের কাছে অনুরোধ করেন। এছাড়াও বয়স্ক ভাতা ও বিভিন্ন সময়ে ত্রাস নিতে আসা বয়স্কদের বসার জন্য একটা ব্যবস্থা করা যায় কিনা সে বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, উপজেলা পরিষদ অতি পুরাতন একটি স্তর। যেটি মানুষের সেবা দিয়ে আসছে। এই সেবা আরো গতিশীল করার জন্য সরকার কাজ করে যাচ্ছে। এরই ফলশ্র“তিতে ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে ৪ কোটি ২৫ লক্ষ ৮০ হাজার ৩৯৪ টাকা ১৯০ পয়সা চুক্তি মূল্যে এই ভবন হতে যাচ্ছে। বর্তমান সরকারের বিভিন্ন গণমুখী উন্নয়নের সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য এবং রাজবাড়ী সদর উপজেলার জনগণ যাতে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের সেবাসমূহ সমম্বিতভাবে একই ভবনে এসে গ্রহণ করতে পারে সে উদ্দেশ্যে সরকার এলজিইডি’র মাধ্যমে উপজেলা পরিষদের প্রশাসনিক ভবন সম্প্রসারন নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। এ ভনটির ফাউন্ডেশন ৬ তলা হলেও ৪ তলা হবে। এটির আয়তন ১৭০০০ বর্গফুট। কক্ষ হবে ৩০টি। এছাড়াও থাকবে ১০০ আসন বিশিষ্ট একটি হলরুম। প্রস্তাবিত ভবনে উপজেলা পরিষদের প্রতিটি কার্যালয়ের জন্য কক্ষ, সভা কক্ষসহ সাধারণ টয়লেট, মহিলা কর্মচারী/দর্শনার্থীদের জন্য পৃথক টয়লেট এবং শারিরিক প্রতিবন্ধিদের জন্য ঢালু র্যাম্প এর ব্যবস্থা থাকবে। ১ম পর্যায়ে ২০৪টি উপজেলায় এই কার্যক্রম বাস্তবায়নাধীন রয়েছে।

সভাপতির বক্তব্যে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেওয়ান মাহাবুবুর রহমান বলেন, বর্তমান সরকার যে উন্নয়ন কর্মকান্ড করেছে তারই ধারাবাহিকতায় এই ভবন। এই ভবন সদর উপজেলাবাসীর সম্পদ। সরকারের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডের সাথে আমরা থাকবো এবং রাজবাড়ী সদর উপজেলাকে সন্ত্রাস, মাদক ও বাল্য বিবাহ মুক্ত উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলবো।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ জিল্লুর রহমান।

 

 

আপডেট : বৃহস্পতিবার অক্টোবর ২৩,২০১৪/ ‌০২:১৮ পিএম/ আশিক

 

 


এই নিউজটি 1147 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments