,

সর্বশেষ :
রাজবাড়ীতে যাত্রা শুরু করলো ‘সবুজ বাংলা কুরিয়ার সার্ভিস’ রাজবাড়ী পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তিতু বিজয়ী গোয়ালন্দ বহুমুখী সমবায় সমিতি’র ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য হলেন দেওয়ান ফিরোজ রাজবাড়ীতে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইলেন কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা হক রাজবাড়ীর সন্তান সৌরভ হাসানের গল্পগ্রন্থ-‌’হলদে পাখির গান’। গোয়ালন্দ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে লাঙ্গল নিয়ে লড়ছেন সাংবাদিক হেলাল রপ্তানি খাতে একধাপ এগিয়ে যাবার লক্ষে ‘ডিভিশন প্রাইম গ্রীন’ এর যাত্রা শুরু রাজবাড়ী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী পলাশের মনোনয়ন পত্র দাখিল, সাংবাদিক সম্মেলন ‘হারিয়ে গেছে বাবা নামক বটগাছ’ রাজবাড়ীর লাভলু হত্যা মামলার তদন্তভার পিবিআই’কে দেয়ার আবেদন পরিবারের

৩ বছরেও শেষ হয়নি বাগমারা-জৌকুড়া সড়কের উন্নয়ন কাজ, এলাকাবাসীর বিক্ষোভ

News

রাজবাড়ী : রাজবাড়ী সদর উপজেলার বাগমারা মোড় থেকে জৌকুড়া ফেরিঘাট পর্যন্ত মাত্র সাড়ে ছয় কিলোমিটার আঞ্চলিক মহাসড়কের প্রশস্তকরণ কাজ তিন বছরেও সম্পন্ন না হওয়ায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) সকালে জৌকুড়া ও দয়ালনগর এলাকায় এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

এতে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক কাউসার আল ফেরদৌস, চন্দনী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রব, মিজানপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আজম মণ্ডলসহ অন্যরা বক্তব্য দেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে আঞ্চলিক মহাসড়কটির ৪.২৭ মিটার থেকে ৮.৫ মিটার প্রশস্তকরণের কাজ ২৯ কোটি ১৭ লাখ টাকা চুক্তিমূল্যে যৌথভাবে শুরু করেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এসপেক্টা ইঞ্জিনিয়ার্স ও ওয়াহিদ কনস্ট্রাকশন লিমিটেড। সড়কটির নির্মাণ কাজের সময়সীমা ছিল ২০১৯ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ না হওয়ায় আরও দু’দফায় বাড়ানো হয় কাজের মেয়াদ। সেইসঙ্গে চুক্তিমূল্যও ২৯ কোটি থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ৩১ কোটিতে। এরপরও এখনও সড়কটির ৪০ ভাগ কাজ অসম্পন্ন রয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

অথচ এই সড়কটি দিয়েই জৌকুড়া ফেরিঘাট হয়ে পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও বগুড়া জেলার মানুষ বাসে যাতায়াত করত। সড়কটির বেহাল দশার কারণে বর্তমানে এসব অঞ্চলের দুরপাল্লার বাসসহ স্থানীয় লোকাল বাস চলাচলও বন্ধ রয়েছে।

স্থানীয়রা বলেন, সড়কটির উন্নয়ন কাজ ধীর গতিতে হওয়ায় বালিবাহী ট্রাক চলাচলের কারণে বর্ষা মৌসুমে খানাখন্দ ও কাদা তৈরি হয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। আবার শুকনা মৌসুমে সৃষ্টি হয় ধুলোবালি। এমন পরিস্থিতিতে চলাচল তো দূরের কথা সড়কটির আশেপাশের বাড়িতে বসবাস করাও অসম্ভব হয়ে পড়ে। বর্তমানে সড়কটির উন্নয়ন কাজ তো বন্ধ রয়েছেই। তার ওপর আবার সড়কের মাঝখানে ভেকু ও ট্রাক্টর দিয়ে ব্যারিকেড দিয়ে সড়কটির চলাচল বন্ধ করে রেখেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এমন পরিস্থিতিতে মানুষের দুর্ভোগ আরও চরম আকার ধারণ করেছে।

দ্রুত সড়কটির উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন এবং সড়ক থেকে ভেকু ও ট্রাক্টরের ব্যারিকেড সরিয়ে ফেলার দাবি জানান স্থানীয়রা।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি প্রকৌশলী মো. আমজাদ হোসেন জানান, কাজের মালামাল না থাকায় সড়কটির কাজ ২-৩দিন বন্ধ রয়েছে। মালামাল এলেই আবার কাজ শুরু করা হবে। ১০ চাকার ট্রাক যাতে চলাচল করতে না পরে সেজন্য সড়কটিতে ভেকু দিয়ে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। তবে সেখান দিয়ে ছোট গাড়ি চলাচল করতে পারে। ব্যারিকেড তুলে নিলে সব ধরণের ট্রাক চলবে। এতে উন্নয়ন কাজ বাধাগ্রস্ত হবে।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর